আদালতের রায়কে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে তিতাসে নির্মাণ কাজে বাধার অভিযোগ।

আদালতের রায়কে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে তিতাসে নির্মাণ কাজে বাধার অভিযোগ।

এমএ কাশেম ভূঁইয়া বার্তা সম্পাদক।
আদালতের রায়কে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে বিল্ডিং নির্মাণ কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।
কুমিল্লার তিতাসের কড়িকান্দি বাজারে ইটালিয়ান প্লাজার নির্দিষ্ট অংশের পজিশনের মালিক মোসাঃ নাছিমা আক্তার সাংবাদিকদের নিকট এ অভিযোগ করেন।
আদালতের রায়ের কপি দেখিয়ে তিনি বলেন, ১৯৯৭ সালে কড়িকান্দি মৌজার এসএ খতিয়ান নং ২৭২ এর খারিজ নং ৬৬২ খতিয়ানভুক্ত ও ডিপি নং ১৮৪৩ খতিয়ানভুক্ত সাবেক ১০৮১ দাগে হালে ৩৭৭৬ ডোবা দোকানপাট ৩শতক। যাহার উত্তরে নুরুল হাসান, দক্ষিনে সরকারী রাস্তা, পুর্বে শান্তি মিয়া ও পশ্চিমে ফারুক হোসেন এবং একই দাগে উত্তরে কাদের ভূইয়া, দক্ষিণে সরকারী রাস্তা, পুর্বে ফারুক হোসেন, পশ্চিমে জব্বর মেম্বার ১০শতক জায়গাসহ মোট ১৩শতক ভূমি আমি আমার স্বামি কাবিল হোসেনের কাছ থেকে ১৯৯৭ সালে ক্রয় সুত্রে মালিক হয়ে ভোগ দখল করে আসছি। ১৯৯৭ সালে রেজিস্ট্রিকৃত ১০শতক যাহার দলিল নং- ৪৫৫৫ এবং ২৯ জুন রেজিস্ট্রিকৃত ৩শতক দলিল নং ৪৫৩৯।
এরই মধ্যে আমার দেবর ফারুক হোসেন, নুরুল হাসান, ননদ রিনা ও মনি’র বিতর্কিত উদ্দেশ্যে বিভিন্ন সময় নানাহ অজুহাত দেখিয়ে আমার দখলীয় কড়িকান্দি বাজারস্থ ইটালিয়ান প্লাজার দ্বিতীয় তলায় ৪টি ও নিচ তলায় ৪টি দোকান ঘর তালা লাগিয়ে দেয়। আমি উপায়ন্তর না পেয়ে ২০১৫ সালে কুমিল্লার বিজ্ঞ আদালতে একটি দেওয়ানি মামলা নং ১৪/১৫ দায়ের করেছি। উক্ত মামলাটি বিজ্ঞ বিচারক ২বছর শুনানি শেষে গেলো ২০১৭ সালে আমার দখলীয় নালিশী তফসিলভুক্ত ভূমিতে বিবাদীগণকে অনুপ্রবেশ না করার জন্য চিরস্থায়ী ভাবে নিষেধাজ্ঞা জারি করে আমার পক্ষে রায় প্রদান করেন। উক্ত রায়ের আলোকে আমি ইটালিয়ান প্লাজার তৃতীয় তলায় চলতি বছরের আগস্ট মাসের ২২ তারিখে ৩ রুম বিশিষ্ট ইমারত নির্মান কাজ শুরু করি। এখন ছাদ ঢালাই দিতে গেলে আমাকে নুরুল হাসান গং বাধা প্রদান করে। আমি এর সুষ্ট বিচার চাই। এবিষয়ে নুরুল হাসান সাংবাদিকদের বলেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মহাসিন ভূইয়ার নিকট আমরা বিচার দিয়েছি। উভয় পক্ষ সাদা কাগজে স্বাক্ষর করেছি, আগামী রোববার বিচারের তারিখ করা হয়েছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে কড়িকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান মহাসিন ভূইয়া সাংবাদিকদের বলেন, উভয় পক্ষের সম্মতি ক্রমে আগামী রোববার বিচারের তারিখ করা হয়েছে এবং মার্কেটের দোকানিদের উপস্থিতিতে বিচার হবে বলে উভয় পক্ষ সম্মতি দিয়েছে।
তবে বিজ্ঞ আদালতের চিরস্থায়ী রায়ের পর আবার বিচার ব্যবস্থা কেউ কেউ সন্দেহের চোখে দেখছেন আবার অনেকেই শান্তির লক্ষে ফলপ্রসূ হবে বলেও এই প্রতিনিধিকে জানান।

See also  জনগণকে সাথে নিয়েই একটা সুন্দর সমাজ গড়তে চাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/grambanglar/public_html/wp-includes/functions.php on line 5107